ট্রাম্পের কাছে করা প্রিয়া সাহার অভিযোগ সঠিক নয় : মার্কিন রাষ্ট্রদূত - all-banglanews
ঢাকা। রবিবার, ১০ ভাদ্র, ১৪২৬; ২৫ আগস্ট, ২০১৯; ২৩ জিলহজ্জ, ১৪৪০
হোম / জাতীয় / ট্রাম্পের কাছে করা প্রিয়া সাহার অভিযোগ সঠিক নয় : মার্কিন রাষ্ট্রদূত

ট্রাম্পের কাছে করা প্রিয়া সাহার অভিযোগ সঠিক নয় : মার্কিন রাষ্ট্রদূত

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহা নামক জনৈক বাংলাদেশী নারী সংখ্যালঘু নির্যাতন বিষয়ে যে তথ্য দিয়েছেন তা সঠিক নয় বলে মন্তব্য করে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার বলেছেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায় একে অপরকে শ্রদ্ধা করে। আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় বৌদ্ধ মন্দিরে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এই কথা বলেন। তিনি বলেন, আমার প্রথম ৮ মাসের দায়িত্ব পালনকালে আমি বাংলাদেশের ৮টি বিভাগেই ঘুরেছি। মসজিদ, মন্দির ও চার্চে গিয়ে ইমাম পুরোহিতদের সাথে কথা বলেছি। এখন আমি এসেছি একটি বৌদ্ধ মন্দিরে, আমার কাছে যেমনটা মনে হয়েছে, এখানকার ভিন্ন ভিন্ন বিশ্বাসের লোকজন একে অপরকে শ্রদ্ধা করে। তাই আমি মনে করি, তার অভিযোগ সঠিক নয় বরং ধর্মীয় সম্প্রীতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একটি উল্লেখযোগ্য নাম। যদিও কোন দেশই সংখ্যালঘুদের অধিকার দিতে সফলতা পায়নি। তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলের প্রধান ইস্যুগুলো কী তা যুক্তরাষ্ট্র ভালোভাবেই জানে।
গত সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ধর্মীয় স্বাধীনতা ও সহনশীলতার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন ধর্মীয় নেতা ও প্রতিনিধিদের সাথে তার অফিসে আলাপকালে বাংলাদেশি পরিচয় দিয়ে এক নারী ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করেন, বাংলাদেশে প্রায় ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান নিখোঁজ হয়েছেন। বর্তমানে এখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে উল্লেখ করে তারা বাংলাদেশে থাকতে চায় বলে তিনি ট্রাম্পের সহায়তা চান।
হোয়াইট হাউজের ওয়েব সাইটের এক বিবৃতিতে বাংলাদেশি ওই নারীকে মিসেস সাহা বলে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। আর ট্রাম্পের সাথে ওই কথোপকথনের ভিডিও থেকে জানা যায়, ওই নারীর নাম প্রিয়া সাহা। তিনি একজন মানবাধিকার ও এনজিও কর্মী হিসেবেই পরিচিত।
হোয়াইট হাউজের ওয়েব সাইট সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ জুলাই বুধবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে দেখা করেন চীন, তুরস্ক, কোরিয়া, মিয়ানমারসহ বিশ্বের ১৭টি দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা। সেই সাক্ষাৎকারে অংশ নেন বাংলাদেশের এই প্রিয়া সাহা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে তিনি দাবি করেন, বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। এরই মধ্যে ওই ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।
ভিডিওতে দেখা যায়, তিনি অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশে নাকি ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান নিখোঁজ রয়েছেন। তিনি বলেন, দয়া করে আমাদের লোকজনকে সহায়তা করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই। এরপর তিনি বলেন, এখন সেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। তিনি অভিযোগ করেন, আমরা আমাদের বাড়িঘর খুইয়েছি। তারা আমাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে, তারা আমাদের ভূমি দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পাইনি। ভিডিওতে দেখা গেছে, এক পর্যায়ে ট্রাম্প নিজেই সহানুভূতিশীলতার স্বরূপ এই নারীর সাথে হাত মেলান এবং জিজ্ঞেস করন,কারা এমন নিপীড়ন চালাচ্ছে? জবাবে প্রিয়া সাহা বলেন, দেশটির মৌলবাদীরা এসব করছে। তারা সবসময় রাজনৈতিক আশ্রয় পাচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।
ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর শুক্রবার বিকেলে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস তাদের অবস্থান স্পষ্ট করল। রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় বৌদ্ধমন্দির পরিদর্শনে যান মার্কিন রাষ্ট্রদূত। সেখানে পৌঁছালে বৌদ্ধ নেতারা তাকে স্বাগত জানান। এসময় মন্দির প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখেন তিনি। পরে বৌদ্ধ নেতাদের সাথে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনায় মিলিত হন।
বৈঠকে বাংলাদেশে বৌদ্ধসহ বিভিন্ন ধর্মের অনুসারীদের ব্যাপারে খোঁজ খবর নেন মিলার। পরে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশি নারী যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সঠিক নয়। বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান ঘুরে বেড়ানোর কথা জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য।
এদিকে প্রিয়া সাহার অবিযোগ খতিয়ে দেখা হবে বলে আজ এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি। তিনি বলেন, আমি জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থায় ভরা হাউসে একাধিকবার পৃথিবীর সব দেশের এবং বাংলাদেশ ও বাইরের দেশের এনজিওদের মানবাধিকার সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছি। যেখানে শ্রদ্ধেয় রানা দাশ গুপ্তর মত ব্যক্তিগণও উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে দেয়া প্রিয়া সাহার অভিযোগের মতো কোন অভিযোগ বা প্রশ্ন কাউকে করতে দেখিনি। তিনি বলেন, আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। তিনি কেন এটা করলেন তা খতিয়ে দেখা হবে উল্লেক করে তিনি বলেন, তার অভিযোগুলোও সরকার শুনবে এবং খতিয়ে দেখবে।
শাহরিয়ার আলম বলেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে টাম্পও জানেন যে তার কাছেও মিথ্যা অভিযোগ করা হয়। মার্কিন প্রশাসন তাদের এখানকার দূতাবাসের মাধ্যমেই প্রতিনিয়ত তথ্য পেয়ে থাকে এবং আমরাও সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে থাকি।
পক্ষান্তরে প্রিয়া সাহার পরিচয় খোঁজতে গিয়ে জানা যায়, তিনি মহিলা ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ছাত্র জীবনে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ইউনিয়ন করতেন, রোকেয়া হলে থাকতেন। এখন ‘শাড়ি’ নামের একটি এনজিও আছে তার। জানা যায়, বিভ্রান্তিমূলক কর্মকা-ের জন্য গতবছর তাকে মহিলা ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়, বাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার নাটক করে প্রচুর বিদেশি ফান্ড কালেক্ট করেন তিনি। তার গ্রামের বাড়ি চরবানিরী, মাটিভাঙ্গা, নাজিরপুর, পিরোজপুর।
সামাজিাক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে আরও জানা যায়, প্রিয়ার স্বামী মলয় সাহা সহকারী পরিচালক দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), তাদের ২ মেয়ে কয়েক বছর ধরে আমেরিকায় বসবাস করছেন। কিছুদিন পূর্বে প্রিয়া সাহাকে দুদকের অফিসিয়াল গাড়ি ব্যবহার করে এয়ারপোর্টে পৌছে দেন তার স্বামী। ওই দিন সকালে এয়ারপোর্ট পৌছে ফ্লাইট মিস করেন প্রিয়া, তারপর সেদিন রাতেই আরেকটি ফ্লাইটে তিনি আমেরিকায় রওনা হন। তার বিদায় মুহূর্তে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী আকবর কবিরের কন্যা তথাকথিত মানবাধিকার কর্মী খুশী কবির।

এবিএনওয়ার্ল্ড/আলিফ/রোজা

চেক করুন

অধ্যাপক মোজাফফরের কফিনে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

অধ্যাপক মোজাফফরের কফিনে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

দেশের অন্যতম প্রথিতযশা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ (মোজাফফর) সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের …

বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেয়া হলো রাহুলসহ বিরোধী নেতাদের

বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেয়া হলো রাহুলসহ বিরোধী নেতাদের

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীসহ বিভিন্ন বিরোধী দলের ১১ জন নেতাকে শ্রীনগর বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর দিল্লীতে …