বিপদাপদে উত্তম প্রতিদান লাভের আমল – ABNWorld
ঢাকা । রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
হোম / ঈমান-আমল / বিপদাপদে উত্তম প্রতিদান লাভের আমল

বিপদাপদে উত্তম প্রতিদান লাভের আমল

বিপদাপদে উত্তম প্রতিদান লাভের আমল

উম্মুল মুমিনিন হজরত উম্মে সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহু কর্তৃক বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নিকট শুনেছি, তিনি বলেছেন, কোন বান্দার উপর যদি বিপদ আসে, তাহলে সে যদি ইন্নালিল্লাহ’র আমল করে তাহলে আল্লাহ তাআলা তাকে তার বিপদের ছাওয়াব দান করবেন এবং বিনিময়ে তাকে ঐ বস্তুর চাইতে উত্তম বস্তু প্রদান করবেন।

আমলটি-
اِنَّا لِلّهِ وَ اِنَّا اِلَيْهِ رَاجِعْوْنَ – اَللَّهُمَّ أجُرْنِيْ فِيْ مُصِيْبَتِيْ وَ أَخْلِفْ لِيْ خَيْراً مِّنْهَا
উচ্চারণ : ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আল্লাহুম্মা আজিরনি ফি মুসিবাতি ওয়া আখলিফলি খাইরামমিনহা।
অর্থ : নিশ্চয় আমরা সবাই আল্লাহর জন্য। এবং আমরা তারই দিকে ফিরে যাব। হে আল্লাহ! আমাকে আমার এ বিপদে ছাওয়াব দান করুন। এবং এর চেয়ে উত্তম বস্তু বিনিময়ে দান করুন।

তাহলে আল্লাহ তাআলা তাকে ওই বিপদে ছাওয়াব দান করবেন এবং বিনিময়ে তার চেয়ে উত্তম জিনিস দান করবেন।
হজরত উম্মে সালামা বলেন, অতপর যখন (আমার স্বামী) আবু সালামাহ ইন্তিকাল করলেন তখন আল্লাহর রাসুলের নির্দেশ অনুযায়ী আমি ওই দোয়া পড়েছিলাম। ফলে আল্লাহ আমাকে (আমার স্বামীর) বিনিময়ে তার চেয়ে উত্তম (স্বামী) রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে দান করেন। (মুসলিম)
এছাড়া একদিন রাসুল (সা.)-এর জুতার ফিতা ছিঁড়ে গেলে তিনি ‘ইন্না লিল্লাহি’ পড়লেন। সাহাবায়ে কেরাম আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসুল, এটাও মুসিবত? রাসুল (সা.) বললেন, মুমিনের উপর যে অপছন্দনীয় কাজই পতিত হয় সেটাই মুসিবত। (তাবরানি আবু উমামার বর্ণনায়)
হজরত সাঈদ ইবনে জুবায়ের রহ. বলেন, ‘ইন্না লিল্লাহ’ পড়ার নির্দেশনা শুধু এই উম্মতকেই দেয়া হয়েছে। এই নেয়ামত থেকে পূর্বযুগের নবী ও উম্মতগণ বঞ্চিত ছিলেন। (ইবনে কাসির, ৩/১০)
হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) রাসুল (সা.) থেকে বর্ণনা করেন- যে ব্যক্তি মুসিবতের সময় ‘ইন্না লিল্লাহি’ পাঠ করবে, আল্লাহ তায়ালা তার মুসিবত দূর করে দিবেন। তাকে পরকালে কল্যাণ দেবেন এবং তার হারানো/নষ্ট হওয়া বস্তুর বদলে উত্তম বস্তু দান করবেন। (দুররে মনসুর)
হজরত আলী (রা.) রাসুল (সা.) থেকে বর্ণনা করেন, যে মুসলমানের উপর কোনো বিপদাপদ আসে, যদিও দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হবার পর তার মনে পড়ে এবং সে ‘ইন্না লিল্লাহ’ পড়ে নেয়; তখন বিপদে ধৈর্যের সময় যে পুরস্কার পেয়েছিল, এখনও সেই পুরস্কার পাবে। (মুসনাদে আহমদ)
হজরত আবু সিনান (রা.) বলেন, আমি আমার এক শিশু সন্তানকে দাফন করলাম। কবর থেকে উঠার সময় আবু তালহা খওলানি আমার হাত ধরে বের করলেন এবং বললেন, শোনো! আমি তোমাকে সুসংবাদ শোনাচ্ছি। রাসুল (সা.) বলেন, আল্লাহ তায়ালা মালাকুল মওতকে জিজ্ঞেস করেন, তুমি আমার বান্দার চোখের শীতলতা আর তার কলিজার টুকরা কেড়ে নিয়েছ। বলো, সে কী বলেছে? মালাকুল মওত বলেন, প্রভু! সে তোমার প্রশংসা করেছে আর “ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন” পড়েছে।
তখন আল্লাহ তায়ালা বলেন, তার জন্য জান্নাতে একটি ঘর নির্মাণ করো এবং ওই ঘরের নাম রাখো বায়তুল হামদ। (ইবনে মাজাহ, তাফসিরে ইবনে কাসির, ১/২২৮)

চেক করুন

বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্বে মুসল্লিদের ঢল : কাল আখেরী মোনাজাত

বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্বে মুসল্লিদের ঢল : কাল আখেরী মোনাজাত

টঙ্গীর তুরাগ তীরের বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের দ্বিতীয় দিনে শনিবার বাদ ফজর থেকেই লাখ লাখ …

গণজোয়ার আটকানো যায় না : মিজানুর রহমান আজহারী

গণজোয়ার আটকানো যায় না : মিজানুর রহমান আজহারী

সময়ের আলোচিত ইসলামি বক্তা মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী বলেছেন, গণজোয়ার আটকানো যায় না। বানের পানি …