মশা নিয়ে তামাশা - all-banglanews
ঢাকা। বৃহস্পতিবার, ৩১ শ্রাবণ, ১৪২৬; ১৫ আগস্ট, ২০১৯; ১৩ জিলহজ্জ, ১৪৪০
হোম / মতামত / মশা নিয়ে তামাশা

মশা নিয়ে তামাশা

 তুষার আবদুল্লাহ
তুষার আবদুল্লাহ

মশার সঙ্গে লড়াইয়ে কখনও নগরপিতারা জয়ী হননি। বরাবরই পরাজিত। ঢাকা মহানগরের প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ, মির্জা আব্বাস, সাদেক হোসেন খোকা, কেউ মশার সঙ্গে পেরে ওঠেননি। তাদের পূর্বসূরিরাও মশার কাছে নাকাল হয়েছেন। উত্তরসূরিদের শোচনীয় অবস্থা এখন দৃশ্যমান। মেয়র হানিফের সময়কাল থেকেই অন্যতম সেবা সংস্থা হিসেবে সিটি করপোরেশনে নিয়মিত যাতায়াত ছিল। তার কক্ষে প্রবেশ ও তাকে পাওয়া দুর্লভ ছিল না। যতবার তার মুখোমুখি হয়েছি কিংবা টেলিফোনে কথা হয়েছে, তার বেশিরভাগ উপলক্ষ ছিল মশা। সেই যুগে ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়া এসে হাজির হয়নি। কিন্তু শহরজুড়ে সকাল-রাত উড়ন্ত মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ ছিল নগরবাসী। ব্যক্তিগতভাবে বিভিন্ন পরিবারের কাছে ঘরের মশা নিবারণের নানা উপকরণ তখনও সহজলভ্য হয়নি। ধূপ, কয়েল বড়জোর অ্যারোসলেই ছিল ভরসা। নগরপিতারা তখনও ঘটা করে কামান দিয়ে পাড়া মহল্লা প্রকম্পিত করতেন। কামান থেকে ওষুধের যে ঝর্ণাধারা বের হতো, তাতে পানি ও ওষুধের অনুপাত নিয়ে বিতর্ক হয়েছে তখনও। ঢাকায় সেই সময়ে জলাশয় ছিল বেশকিছু, নগরপিতারা আয়োজন করে কচুরিপানা পরিষ্কারের অভিযানে নামতেন। তারপরও মশা কিন্তু বহাল তবিয়তেই ছিল। মশা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে নগরপিতারা তখনও আলটপ্পা কথা বলতেন। সেই সরস বচন মশার কামড়ের যন্ত্রণা বাড়িয়ে দিতো আরও। তখনকার নগরপিতারা সমন্বয় ঘাটতির অজুহাত তুলতেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য দফতরের কাছ থেকে সহযোগিতা না পাওয়া, লোকবল সংকট, ওষুধ কেনার বাজেট ঘাটতি এবং সর্বশেষ দায়টি চাপিয়ে দিতেন নগরবাসীর ওপর। গণমাধ্যমে মশা নিয়ে যতো রিপোর্ট বা ব্যঙ্গাত্বক কার্টুন আসতো, তারা সেগুলো মুখের কামানে উড়িয়ে দিয়ে বলতেন- যতো উপদ্রবের কথা বলা হচ্ছে, ততোটা নেই। এগুলো সরকারকে বিব্রত করতে বলা হচ্ছে। সব সরকারের সব মেয়র এই একই কথা বলেছেন।
পরম্পরায় আমরা নগরপিতাদের কাছ থেকে একই বচনের সঙ্গে কিছু বোনাসও পাচ্ছি। রাজধানীকে দুই ভাগে বিভক্ত করায় এক অংশের নগরপিতা বলছেন, তার এলাকায় মশা নেই, মশা পাশের এলাকা থেকে চলে আসছে। কখনও তারা বলছেন ওষুধে মশাকে ঘায়েল করা যাচ্ছে না। ওষুধের কার্যকরী ক্ষমতা গেছে। মশা শক্তিশালী হয়েছে। আবার উচ্চ আদালতের চোখ রাঙানিতে বচন পাল্টে বলছেন, ‘মশার ওষুধের শক্তি আগের মতোই আছে। ওষুধ দিলে তারা অজ্ঞান হয়ে যায়, কিছু সময় পর আবার জ্ঞান ফিরে পেয়ে শুরু করে হামলা।’ একজন মেয়র বলছেন, ‘ছেলেধরা’ গুজবের মতোই ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ানোও একটা গুজব। তাদের সুরে সুর মিলিয়ে অন্য দফতরের মন্ত্রী বলেন, ‘মশাদের প্রজনন ঘটছে রোহিঙ্গাদের মতো।’ রাজধানীসহ সারাদেশের হাসপাতাল যখন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীতে ভরপুর, তখন এসব ‘আনন্দমেলা’ অনুষ্ঠানের চুটকি নগরবাসীর যন্ত্রণার তীব্রতা আরো বাড়িয়ে দেয়। আক্রান্ত এবং মৃত্যুর আতঙ্ক নিয়ে নগরবাসী নিজেদের আবিষ্কার করে এক তামাশার শহরে। তামাশারই সেই দুই দশক আগের ফ্যাশনে দুই মেয়র প্রতিদিনই নতুন গেঞ্জি টুপি পরে ডেঙ্গু সচেতনতার র‌্যালিতে নামছেন। ছোট-বড় পর্দার তারকাদের নিয়ে হেসে খেলে হাঁটছেন। এই তারকাদের দেখে মশার যেমন ‘ডর’ লাগছে না, তেমনি নগরের মানুষেরাও তাদের দেখে সচেতন হওয়ার তাগিদবোধ করেন না। কারণ আজকাল মুক্ত আকাশ বাতাসের যুগে ওই তারকাদের সচেতনতার আমলনামাও নগরবাসীর হাতে।
তারকাদের টিভি ক্যামেরা সহযোগে মাঠে নামার দরকার ছিল না। ওয়ার্ড কাউন্সিলররা সিটি করপোরেশনের কর্মী, স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের নিয়ে যদি নিয়মিত পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামতেন, তাহলে এডিস মশার লার্ভা জন্ম দেওয়ার বেশিরভাগ উৎসই নষ্ট করা যেতো। ঘরে ঘরে সচেতনতার আনুপাতিক হার বেড়ে যেতো। সঙ্গে চিকিৎসাসেবা দেওয়াও সহজ হতো।
রাজধানীতে সেই ১৯৪৮ সাল থেকে একটি দফতর ধুঁকে ধুঁকে চলছে। মশক নিবারণী দফতর দোতলা হওয়ার আগে অসংখ্যবার যাওয়া হয়েছে। ঢাকেশ্বরী মন্দির সংলগ্ন এই দফতরটিকে কখনও সক্রিয় করা হয়নি। সিটি করপোরেশনের একপ্রকার গুদাম হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। কীটতত্ত্ব বিভাগের মতো মশা ও মশার ওষুধের কার্যক্ষমতা প্রভৃতি বিষয়ে গবেষণা কাজে ব্যবহার করা যেতো এই দফতরকে। দেড় কোটি মানুষের বসবাস যে শহরে, এবং এখানকার নাগরিকদের দশকের পর দশক যে কীটের যন্ত্রণা ভোগ করতে হচ্ছে, তাকে নির্মূল, দমন, নিয়ন্ত্রণের জন্য এই দফতরটি কার্যকরের কথা কি নগরপিতারা ভাববেন না? নাকি এই দফতর কেন মশা নির্মূলে সক্রিয় করা হয়নি বা হচ্ছে না, এমন রুল আসতে হবে মাননীয় উচ্চ আদালত থেকে? (সংগৃহীত)

লেখক: বার্তা প্রধান, সময় টিভি

চেক করুন

টাকা কার, কে নিলো, কোথায় গেলো?

টাকা কার, কে নিলো, কোথায় গেলো?

আবদুল মান্নান ‘সব সম্ভবের দেশ বাংলাদেশে’-এক সপ্তাহের কম ব্যবধানে দু’টি সংবাদ মানুষকে পিলে চমকে দিয়েছে। …

সাগর পাড়ি দেওয়ার নিষিদ্ধ নেশা

সাগর পাড়ি দেওয়ার নিষিদ্ধ নেশা

তুষার আবদুল্লাহ : উড়োজাহাজে আসন নেওয়ার আরও চল্লিশ মিনিট বাকি। দরজার নম্বর জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কফি …